বৃহস্পতিবার, মার্চ ৪, ২০২১



সদ্য সংবাদ

  •   বাংলাদেশের সব খবর সহ আন্তর্জাতিক, বিনোদন, খেলার খবর ও অন্যান্য সব ধরণের খবর সবার আগে অনলাইনে পেতে চোখ রাখুন "টিএনএন" এ। আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও।

বাংলাদেশ

আশরাফুজ্জামান সরকার, গাইবান্ধাঃ- গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় কৃষি জমির মাটি বিক্রি করে ঐ জমি পুকুরে রুপান্তর করা হচ্ছে। খননকৃত জায়গাগুলো পুকুরে পরিনত হওয়ায় অনেক কৃষিজমি ও বেশ কিছু ঘরবাড়ি ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বুধবার (১৭ফেব্রুয়ারি) দুপুরে উপজেলার বেশ কিছু এলাকায় গিয়ে দেখা যায় গহীন করে বিশালাকৃতির পুকুর করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে এসব মাটি কাঁকড়া (ট্রাক্টর) গাড়ী দিয়ে বহন করায় ঐ এলাকার বিভিন্ন স্থানে ধ্বসে যাচ্ছে। এদিকে হোসেনপুর ইউনিয়নের কদমতলী এলাকা থেকে আমবাগান পর্যন্ত করতোয়া বাঁধের অবস্থা ভয়াবহ। ঐ এলাকার কৃষি জমি থেকেও মাটি বিক্রি করে কৃষি জমি বানানো হচ্ছে পুকুর। সেই মাটি পরিবহনে ব্যবহার করা হচ্ছে অবৈধ যান কাঁকড়া (ট্রাক্টর), ঐসব কাকড়া বাধের উপর দিয়ে চলাচলের কারনে বাঁধটি হুমকির মুখে পড়েছে।

এমনকি শতশত গর্তে উপনীত হয়েছে। যার ফলে হাজার হাজার মানুষের চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে বাঁধটি। এছাড়া মাটি খননের কারনে বর্ষা মৌসুমে বাঁধটি ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কাসহ শতাধিক হেক্টর ফসলি জমি ও ঘরবাড়ি হুমকির মুখে পড়তে পারে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। বিদ্যমান পরিস্থিতে ক্ষতির আশঙ্কা মানুষরা গভীর দুশ্চিন্তায় পড়েছেন।

অনুসন্ধানে আরও জানা যায় আমবাগান এলাকার কার্তিক বাবু নামের এক ব্যক্তি দীর্ঘদিন থেকে করতোয়া নদী থেকে মাটি বিক্রি আসছে। ঐসব মাটি পরিবহনে তিনি দিন রাত কয়েকটি কাকড়া ব্যবহার করছেন।

হোসেনপুর ইউনিয়নের করতোয়া পাড়ার স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, খননকৃত জায়গাগুলোতে মাটি দিয়ে ভরাট না করা হলে, বর্ষাকালে বিলীন হতে পারে ঘরবাড়ি ও আবাদী জমি। সম্ভাব্য এ সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তিনি।



সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা